আপডেট: জানুয়ারী ৯, ২০১৮   ||   ||   মোট পঠিত ৪৬ বার

শার্শায় অন্ধ মেয়ের চিকিৎসার্থে দিনমজুর বাবার সাহায্য প্রার্থনা

শার্শা (যশোর) ॥ যশোরের শার্শা উপজেলায় শরিফা খাতুন(২২) নামে এক গৃহবধূ ব্রেন টিবিতে আক্রান্ত হয়ে দুটি চোখ হারিয়ে অন্ধ হয়ে অসহায় জীবন কাটাচ্ছেন। অন্ধ হওয়ার পর দিনমজুর স্বামীর বাড়ি ছেড়ে অবুঝ দুটি শিশু কন্যাকে সাথে নিয়ে দিনমজুর পিতার বাড়িতে অবস্থান করছেন। পিতা মেয়ের চিকিৎসায় সহায় সম্বল বিক্রি করে দিয়েছেন। এখনও মেয়ের চিকিৎসায় অনেক টাকার প্রয়োজন। তাই দু চোখের দৃষ্টি ফেরাতে চিকিৎসার জন্য সমাজের বিত্তবানদের কাছে সাহায্যের আবেদন করেছে শরিফা খাতুন। শরিফা শার্শা উপজেলার নাভারণ দক্ষিণ বুরুজবাগান গ্রামের রওশন আলীর কন্যা। গত ৮ বছর আগে মাত্র ১৪ বছর বয়সে ৮ম শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় বেনাপোল সাদীদুর গ্রামের দিনমজুর ইব্রাহীমের সাথে শরিফার বিয়ে হয়। বিয়ের এক বছর পরেই শরিফা মা হয়। এখন শরিফার দুটি কন্যা সন্তান। বড় মেয়ে সুরাইয়ার বয়স ৭ বছর ও ছোট মেয়ে সুমাইয়ার বয়স ১ বছর। দুটি সন্তান নিয়ে শরিফা এখন তার দিনমজুর পিতার বাড়িতে আছেন।
জানা গেছে, প্রথমে শরিফা ব্রেন টিবি রোগে আক্রান্ত হন। এতে ক্রমাগত তার মাথায় ব্যথা অনুভব হতে থাকে। ডাক্তাররা তার উন্নত চিকিৎসা জন্য ভারতে নিতে বলেন। অসহায় দিনমজুর পিতা রওশন আলী কলকাতার একটি প্রাইভেট কিনিকে শরিফাকে নিয়ে যান। সেখানে ডাক্তার তার ব্রেন টিবি অপারেশন করেন। কলকাতায় শরিফার দু বার অস্ত্রোপচারে ব্রেন টিবির সফল অপারেশন হলেও তার প্রভাব পড়েছে দু’ চোখের ওপর। কিছুদিন পর শরিফার দৃষ্টি হারিয়ে যায়। ফলে অন্ধ হয়ে পড়েন তিনি। তার বর্তমানে আশ্রয় হয়েছে গরিব বাবার অভাবের সংসারে। স্বামী সংসার ছেড়ে অসহায় শরিফা বুক ফাঁটা চাপা কান্নায় নীরবে গুমরে মরছেন। অন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে শরিফা তার স্বামীর সংসার ছেড়ে বাপের বাড়িতে চলে এসেছেন। শরিফার পিতা রওশন আলী বলেন, শরিফার চিকিৎসা ব্যয় এখন পর্যন্ত প্রায় ৬ লাখ টাকা ছাড়িয়ে গেছে। এখন আর খরচ করার মত একটি টাকাও তার কাছে নেই। তিনি সমাজের বিত্তবানদের কাছে তার মেয়ের চোখের দৃষ্টি ফেরাতে আর্থিক সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন। রওশন আলী বলেন, শরিফার চোখের দৃষ্টি ফেরাতে এখনো ৮ লাখ টাকা প্রয়োজন। তা হলে শরিফা আবারো এই পৃথিবী দেখবে, স্বামী সংসার সন্তান নিয়ে আবার সংসার করতে পারবে। দেশের সব শ্রেণির মানুষের কাছ থেকে আর্থিক সাহায্য পাওয়ার জন্য সবিনয় অনুরোধ জানিয়েছেন। সাহায্য পাঠানোর বিকাশ মোবাইল নং ০১৯২১-৮২৬৫৩৯।

তথ্যসূত্রঃ Daily Loksomaj