আপডেট: জানুয়ারী ১, ২০১৮   ||   ||   মোট পঠিত ৫৭ বার

রাজগঞ্জের গাছিরা খেজুরের রস সংগ্রহে ব্যস্ত গ্রামে গ্রামে চলছে গুড়-পাটালি বানানোর ধুম

ওসমান গণি, রাজগঞ্জ (যশোর)॥ প্রকৃতির নিয়মে বাড়ছে শীত। শীতের আগমনে দক্ষিণাঞ্চল নতুন করে ঐতিহ্যের গৌরবে মুখরিত হয়ে উঠেছে। যশোরের যশ খেজুরের রস যেন শীতের-ই অবদান। এ অঞ্চলে শীত এসেছে বেশ দেরিতেই। সকালে শীতের কুয়াশা চাদরের মত জড়িয়ে থাকছে প্রকৃতির গায়ে। শীতের সকালে যশোর জেলার ঐতিহ্যবাহী মিষ্টি খেজুরের রস বড়ই মধুর। গাছিরা শীতকে উপেক্ষা করে বের হচ্ছেন খেজুরের রস সংগ্রহ করতে। যশোরের মনিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জ অঞ্চলের প্রতিটি গ্রামেই চলছে খেজুরের রস সংগ্রহের কাজ। সেই সাথে বাড়িতে বাড়িতে চলছে গুড় পাটালি বানানোর কাজও।
উপজেলার এ অঞ্চলের গাছিরা শীতের শুরুতেই খেজুর গাছগুলো কেটে হাঁড়ি ঝুলিয়েছেন। বর্তমানে শীত একটু বেশি পড়ায় রাজগঞ্জ অঞ্চলে রস সংগ্রহ শুরু হয়েছে পুরোদমে। শীতের সময় খেজুরের রসের চাহিদা শুধু গ্রামে নয়, শহরেও ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। ফলে ক্রেতার চাহিদা মেটাতে গাছ থেকে রস সংগ্রহ করে তা বিক্রির উদ্দেশে গাছিরা ভোরবেলা রওয়ানা হন জেলা ও উপজেলা শহরের দিকে। রসের দাম এবার একটু বেশি হওয়ায় লাভবান হচ্ছেন গাছিরা।
রাজগঞ্জ অঞ্চলে তাই যেন খেজুরের রস সংগ্রহ করে বাড়িতে বাড়িতে পিঠা-পায়েস খাওয়ার ধুম পড়ে গেছে। পাশাপাশি দেশের বিভিন্ন প্রান্তে থাকা আত্মীয়-স্বজনদের পিঠা-পায়েস খাওয়ানো জন্য নিমন্ত্রণ করা হচ্ছে। শীত মৌসুমে এখানে অনেক বাড়িতেই গুড় উৎপাদনের কাজ চলে। এ অঞ্চলের উৎপাদিত গুড় ও পাটালি মানে ও স্বাদে সারাদেশে সমাদৃত। ফলে গুড় ব্যবসায়ীরা উন্নতমানের পাটালি সংগ্রহ করে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সরবরাহ করছেন। গুড়-পাটালির ব্যবসাকে আরও সমৃদ্ধ করতে খেজুর গাছ চাষের উপযুক্ত ভূমি যশোরে আধুনিক ও বিজ্ঞানসম্মত উপায়ে খেজুর গাছ চাষ করার জন্য সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগ প্রয়োজন বলে বিজ্ঞজনেরা মনে করেন। স্থানীয় কৃষক ও ভূমি মালিকদের খেজুর গাছ চাষে উৎসাহিত করতে সংশ্লিষ্ট দফতরের পদক্ষেপ গ্রহণও সময়ের দাবি বলে তারা উল্লেখ করেন।

তথ্যসূত্রঃ Daily Loksomaj