আপডেট: অক্টোবর ৭, ২০১৭   ||   ||   মোট পঠিত ৬১ বার

মাগুরায় এসআইয়ের বিরুদ্ধে মামলা

মাগুরা ডিবি পুলিশের এক উপপরিদর্শকের (এসআই) বিরুদ্ধে সাবেক সেনা সদস্যকে মারধর করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ক্ষমতার অপপ্রয়োগের এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার আক্রান্ত ব্যক্তির ভাই মাগুরার সিনিয়র জুডিশিয়াল আদালতে মামলা করেছেন। আদালত অভিযোগ আমলে নিয়ে বিষয়টি মহম্মদপুর থানার ওসিকে তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, মাগুরার মহম্মদপুরের লক্ষ্মীপুর গ্রামে দুই দল গ্রামবাসীর সংঘর্ষের ঘটনায় থানায় দুটি মামলা হয়। যার এক পক্ষে রয়েছেন এসআই সালাউদ্দিনের শ্বশুর গোলাম মোস্তফা। গত ২৯ সেপ্টেম্বর রাতে বাড়ি থেকে অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য আলমগীর হোসেনকে আটক করেন মাগুরা ডিবি পুলিশের এসআই সালাউদ্দিন। এ সময় আলমগীরের দুই হাত পেছনে দিয়ে হাতকড়া লাগিয়ে বেধড়ক মারধর করা হয়। এ ছাড়া ঘরের আলমারি থেকে ৫০ হাজার টাকা ও দেড় লক্ষাধিক টাকা মূল্যের স্বর্ণালংকার নিয়ে যায় তারা। এ সময় আদালতের গ্রেপ্তারি পরোয়ানা দেখতে চাইলে তারা সেটি দেখাতে ব্যর্থ হয়। তা ছাড়া পরিবারের পক্ষ থেকে আলমগীরকে ছেড়ে দেওয়ার অনুরোধ করা হলে সালাউদ্দিন দুই লাখ টাকা দাবি করেন। টাকা না দেওয়ায় তাঁকে মারধর করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

সেখানে অবস্থা গুরুতর হলে হাসপাতালে চিকিৎসা দিয়ে তাঁকে আদালতে সোপর্দ করা হয়। পরে আদালত থেকে তিনি জামিনে মুক্তি পান। এ বিষয়ে মহম্মদপুর থানার ওসি তরীকুল ইসলাম বলেন, ‘সাধারণত যেকোনো মামলায় দায়িত্বপ্রাপ্ত সংশ্লিষ্ট থানার পুলিশ আসামিকে গ্রেপ্তার করে। তবে অনেক ক্ষেত্রে থানায় মামলার সংখ্যা বেশি হলে ডিবি পুলিশকে আসামি গ্রেপ্তারের দায়িত্ব দেওয়া হয়। সে ক্ষেত্রে দায়িত্বপ্রাপ্তরা সংশ্লিষ্ট থানাকে অবহিত করে আসামি ধরতে যান। কিন্তু আলমগীরকে গ্রেপ্তারের পর বিষয়টি আমাদের জানানো হয়েছে। ’ 

তবে ডিবি পুলিশের এসআই সালাউদ্দিন বলেন, ‘আলমগীর হোসেনের বিরুদ্ধে মহম্মদপুর থানায় মামলা আছে। ওই মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি হিসেবেই তাঁকে গ্রেপ্তার করেছি। আলমগীর ওই মামলার অভিযোগ থেকে রেহাই পেতে এখন পুলিশের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ আনছেন। আমি তাঁকে রাস্তা থেকে গ্রেপ্তার করেছি, বাড়ি থেকে নয়। এ ছাড়া নির্যাতনের অভিযোগ সম্পূর্ণই মিথ্যা। ’

এদিকে আলমগীর হোসেন গতকাল জানিয়েছেন, এসআই সালাউদ্দিনের বিরুদ্ধে মামলা করার কারণে তাঁর শ্যালক সেলিমসহ একটি গ্রুপ শুক্রবার সকালে তাঁদের ওপর হামলার চেষ্টা করে। এ সময় তাঁরা লক্ষ্মীপুর গ্রামে ইমরান হোসেন নামের একজনের বাড়িতে আশ্রয় নিলে ওই বাড়ি ভাঙচুর করা হয়। এ ছাড়া এসআই সালাউদ্দিনের বিরুদ্ধে করা মামলায় যাঁদের সাক্ষী করা হয়েছে তাঁদেরও হুমকি দেওয়া হচ্ছে।

তথ্যসূত্রঃ Kaler-Kontho