আপডেট: জুন ৩, ২০১৭   ||   ||   মোট পঠিত ১৫২ বার

নিখোঁজের চারদিন পর গৃহবধূর লাশ মিললো সেপটিক ট্যাংকে

ঝিনাইদহ শহরের উপ-শহরপাড়ার একটি  সেপটিক ট্যাংক থেকে শুক্রবার সকালে নিখোঁজের চারদিন পর মনোয়ারা খাতুন (৫০) নামে এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তিনি একই এলাকার নতুন কোর্টপাড়ার আব্দুর রহিম মহুরির স্ত্রী। গত মঙ্গলবার থেকে নিখোঁজ মনোয়ারা খাতুনকে হত্যার পর লাশ সেপটিক ট্যাংকের মধ্যে লুকিয়ে রাখা হয় বলে পুলিশ ধারণা করছে। এ ঘটনায় পারুল নামে সন্দেহভাজন এক মহিলাকে পুলিশ আটক করেছে।
ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি হরেন্দ্র নাথ সরকার জানান, শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে এলাকাবাসীর সংবাদের ভিত্তিতে উপশহরপাড়ার ইফতেখারুল আলমের বাড়ির সেপটিক ট্যাংক থেকে বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। এ সময় ঘটনাস্থলে সহকারী পুলিশ সুপার কানিজ জাহান উপস্থিত ছিলেন। নিহতের স্বামী আব্দুর রহিম মহুরি জানান, গত মঙ্গলবার থেকে চারদিন ধরে তার স্ত্রী নিখোঁজ ছিল। এ ব্যাপারে তিনি সন্ধানের দাবিতে মাইকিংও করেন।
স্বামী রহিমের অভিযোগ, পাওনা টাকা চাওয়ায় তার স্ত্রীকে হত্যা করা হয়েছে। প্রতিবেশিরা জানান, বিভিন্ন এনজিও থেকে মনোয়ারা খাতুন নিজের নামে ঋণ নিয়ে পাড়ার একাধিক মহিলাকে দেন। তাছাড়া ওই মহিলা সুদে কারবার করতেন বলে অভিযোগ। এখন ওই সব মহিলা আর কিস্তি বা ঋণ কোনটাই পরিশোধ করছে না। এদিকে এনজিও’র প্রতিনিধিরা প্রতিনিয়ত টাকার জন্য ধর্ণা দিচ্ছে। এ নিয়ে মনোয়ারা খাতুনের সাথে ঋণ নেওয়া মহিলাদের প্রায় ঝগড়া বিবাদ হতো। গত মঙ্গলবার ঋণের টাকা আদায় করতে বের হন মনোয়ারা খাতুন। এরপর থেকেই তিনি নিখোঁজ হন। পুলিশের একটি সূত্র জানায়, ঘরের মধ্যে হত্যার পর লাশ টেনে হেঁচড়ে নিয়ে যাওয়ার আলামত পাওয়া গেছে।

তথ্যসূত্রঃ Daily Loksomaj