আপডেট: মে ১৮, ২০১৭   ||   ||   মোট পঠিত ৭৯ বার

সমতা আর মমতার দৃষ্টিভঙ্গীতে মানবাধিকার সংষ্কৃতি গড়তে হবে : নজরুল ইসলাম

সমতা আর মমতার দৃষ্টিভঙ্গীতে মানবাধিকার সংষ্কৃতি গড়তে হবে : নজরুল ইসলামজাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সার্বক্ষণিক সদস্য মো: নজরুল ইসলাম বলেছেন, মানবাধিকার মানুষের সংবিধান স্বীকৃত অধিকার। এ অধিকার প্রতিষ্ঠায় সবাইকে সমন্বিত ভাবে কাজ করতে হবে। সামাজিক প্রথা, দৃষ্টিভঙ্গী আর আচরণ মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার অন্তরায়। এসব পশ্চাদপদ বৃত্ত ভেঙ্গে মানবাধিকার সংষ্কৃতি গড়ে তুলতে হবে। জনগণই রাষ্ট্রের মালিক। জনগণকে সেবা প্রদানের জন্য নিজেদের প্রস্তুত রাখতে হবে। সেবা প্রদানে আরো বেশী সহনশীল ও সংবেদনশীল আচরণ করতে হবে। মধ্যম আয়ের দেশ থেকে উন্নত রাষ্ট্রের পথে এগিয়ে চলেছে বাংলাদেশ। অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির সাথে সাথে মানবিক গুনাবলী আর আচরণেরও পরিবর্তন আনতে হবে। গতকাল যশোর সার্কিট হাউজে ‘মানবাধিকার ধারণা ও প্রায়োগিক দিক শীর্ষক কর্মশালার মূল আলোচকের বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
এ সময় তিনি আরো বলেন সম্মিলিত প্রচেষ্টার মাধ্যমে দেশে মানবাধিকার সংহত করতে হবে। সমতা আর মমতার দৃষ্টিভঙ্গী ইতিবাচক পরিবর্তন আনে। আইনের পাশাপাশি সহমর্মিতায় মানবাধিকারকে সামাজিকভাবে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে।
সকাল দশটায় যশোর জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় জাতীয় মানবাধিকার কমিশন এ কর্মশালার আয়োজন করে।
কর্মশালায় যশোর জেলা প্রশাসক ড. মোঃ হুমায়ুন কবীর বলেন, মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় পরিবার থেকেই পরিবর্তনের সূচনা করতে হবে। সন্তানদের প্রতি অভিভাবকদের আরো বেশী দায়িত্বশীল হতে হবে। না দিয়ে নয়, সন্তানদের শিক্ষা দিতে হবে হ্যা দিয়ে, যাতে তারা সব কিছুতে ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গী নিয়ে বেড়ে উঠতে পারে। তবে আশাব্যঞ্জক কথা হচ্ছে দেশের মানুষ আগের চাইতে এখন অনেক বেশী সচেতন।
কর্মশালায় মানবাধিকার কমিশন এবং এর কার্যাবলী সর্ম্পকে পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপন করেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশন খুলনা জেলা কার্যালয়ের সহকারি পরিচালক (প্রশিক্ষণ) আজাহার হোসেন। আমিই পারি শিশুর প্রতি সহিংসতা বন্ধ করতে শীর্ষক শিশু অধিকার বিষয়ক পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপন করেন ওয়ার্ল্ড ভিশন যশোর এলাকা সমন্বয়কারী মাইকেল মন্ডল। প্রতিবন্ধীদের মানবাধিকার বিষয়ক পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপন করেন বন্ধু কল্যাণ ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা মনোয়ার হোসেন।
কর্মশালায় উন্মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন যশোর কালেক্টরেট স্কুলের অধ্যক্ষ সুলতান আহমেদ, স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ পরিচালক মাজেদুর রহমান খান, সচেতন নাগরিক কমিটি যশোরের সভাপতি এম আর খায়রুল উমাম, ব্র্যাকের জেলা প্রতিনিধি ইদ্রিস আলী, ঝিকরগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম, এম এম কলেজের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. রেজাউল করিম, বাঁচতে শেখা কর্মকর্তা বিথীকা হাজরা, সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নাসরিন আক্তার, সরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজের উপাধক্ষ্য ড. জয়নাল আবেদীন খান, জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি ব্যুরোর উপ পরিচালক রাহেনুর ইসলাম, সহকারি কমিশনার কে এম আবু নওশাদ, সহকারি কমিশনার আয়শা সিদ্দিকা, দৈনিক গ্রামের কাগজের স্টাফ রিপোর্টার এস এম আরিফ, কেশবপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম, অভয়নগর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনিসুর রহমান, আবু সালেহ মাসুদ করিম, কোতোয়ালী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আজমল হুদা, কোর্ট ইন্সপেক্টর রেজাউল করিম, ঝিকরগাছা পৌর মেয়র মোস্তফা আনোয়ার পাশা জামাল, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কে এম মামুন উজ্জামান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) রেজায়ে রাব্বী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শহীদ মোহাম্মদ আবু সরোয়ার, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আসাদুল হক।
আলোচনায় বক্তারা মানবাধিকার সুদৃঢ় করতে স্ব স্ব অবস্থান থেকে দায়িত্বশীল হওয়া, মানবাধিকার বিষয়ক প্রচার প্রচারণা চালানো, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টার চালু, কাউন্সিলিং, আত্ম সমালোচনা, সামাজিক দায়বদ্ধতা বৃদ্ধিমূলক কর্মসূচি বাস্তবায়নের আহবান জানান।
অনুষ্ঠানে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ( শিক্ষা ও আইসিটি) দেব প্রসাদ পাল, চৌগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নার্গিস পারভীন, দৈনিক গ্রামের কাগজের সম্পাদক মবিনুল ইসলাম মবিন, বাংলাদেশ বেতারের জেলা প্রতিনিধি ও দৈনিক ইত্তেফাকের স্টাফ রিপোর্টার ফারাজী আহমেদ সাঈদ বুলবুল, সহকারী কমিশনার ও এনডিসি সৈয়দ জাকির হাসান, সহকারী কমিশনার নুরুল ইসলাম, সহকারী কমিশনার কাজী নাজিব হাসান, সহকারী কমিশনার প্রীতম সাহা, সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার ডা. হাবিবা সিদ্দিকা ফোয়ারা, আরআরএফের উপ পরিচালক শামীম খান সহ সকল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।
গতকাল দুপুরে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের আয়োজনে অনুরূপ কর্মশালা ঝিনাইদহে অনুষ্ঠিত হয়।

তথ্যসূত্রঃ Daily gramerkagoj