আপডেট: মার্চ ১৮, ২০১৭   ||   ||   মোট পঠিত ৫১ বার

পরাধীন জাতিকে মুক্তি করতেই বঙ্গবন্ধুর জন্ম হয়েছিল

পরাধীন জাতিকে মুক্তি করতেই বঙ্গবন্ধুর জন্ম হয়েছিলআওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য এড.পিযুষ কান্তি ভট্টাচার্য বলেছেন, পরাধীন জাতিকে মুক্ত করতেই বঙ্গবন্ধুর জন্ম হয়েছিল। তিনি না আসলে বাঙালী জাতির মুক্তি হতো না। সর্বকালের শ্রেষ্ঠ এই বাঙলীকে যারা হত্যা করেছে তারা চিরকাল এ জাতির শত্রু হয়ে থাকবে। তিনি গতকাল বঙ্গবন্ধুর জন্ম দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ সব কথা বলেন।
শুক্রবার বিকেলে যশোর শহরের দড়াটানা ভৈরব চত্বরে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি এড.জহুর আহমেদ।
এ সময় প্রধান অতিথি আরও বলেন, বর্তমানে জামায়াত বিএনপি খুব সুখে বসবাস করছে। বিরোধীদল হিসেবে আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা তাদের কোন প্রকার হয়রানি করছে না। নিরীহদের জনগনের উপর হামলা ও মানুষ পুড়িয়ে মারার দায়ে আইন-প্রয়োগকারী সংস্থা তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে।
তিনি নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, সকলকে সজাগ থাকতে হবে, কারণ আগামী নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াত মানুষের মাঝে নানা প্রকার ভুলতথ্য পরিবেশন করবে। যাতে করে আওয়ামী লীগের অনেক ক্ষতি হতে পারে। তাই ঐক্যবদ্ধ থেকে সকল ষড়যন্তকে রূখতে হবে।
বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন চাকলাদার।
এ সময় তিনি বলেন, ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলার মাধ্যমে দেশনেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা করতে চেয়েছিল পাকিস্তানের দোসররা। এর মূলহোতা ছিল খালেদা জিয়া ও তারেক জিয়া।
এ সময় তিনি আরও বলেন, বর্তমান সরকারের উন্নয়নকে সহ্য করতে পারছে না বিএনপি। তাই তারা নানা প্রকার তালবাহানা শুরু করেছে। আগামী নির্বাচনে বিএনপি যদি না আসে তাহলে পাকিস্তানের বর্ডার খোলা আছে সে দিকে পাড়ি দেয়ার আহবান জানান তিনি।
সভায় আরও বক্তৃতা করেন, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক কাজী রফিকুল ইসলাম রফিক, সাংগঠনিক সম্পাদক মীর জহুরুল ইসলাম, শহর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ইমাম হাসান লাল, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও জেলা আওয়ামী লীগ নেতা নূর জাহান ইসলাম নীরা, জেলা যুবলীগের সভাপতি মোস্তাফা ফরিদ আহমেদ চৌধুরী, সহসভাপতি সৈয়দ মেহেদী হাসান, জেলা শ্রমিক লীগের (ভারপ্রাপ্ত)সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন, যুব মহিলা লীগের সভানেত্রী মঞ্জুন-নাহার নাজনীন সোনালী, ছাত্রলীগের জেলা সভাপতি আরিফুল ইসলাম রিয়াদ, সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বিপুল প্রমুখ।
উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম নেতা ও জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদের সভাপতি আমিরুল ইসলাম রন্টু, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক রেজাউল ইসলাম, ত্রাণ ও পুনর্বাসন বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান মনি, তথ্য গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক জিয়াউল হক হ্যাপী, প্রচার সম্পাদক মুজিবদৌলা সরদার কনক, জেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম নেতা শফিউদ্দিন অরুন, কবিরুল আলম, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও আরবপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহারুল ইসলাম, কাশিমপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মশিয়ার রহমান সাগর, নওয়াপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এহসানুর রহমান লিটু, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক শফিকুল ইসলাম জুয়েল, কাউন্সিলর রোকেয়া পারভিন ডলি, জেলা বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের সভাপতি আজাদ রফিক, সাধারণ সম্পাদক মোল্লাহ জাহিদ প্রমুখ।
সমগ্র আয়োজনে সঞ্চালকের দায়িত্বে ছিলেন জেলা ছাত্রলীগের সাবেক (ভারপ্রাপ্ত) সাধারণ সম্পাদক ও জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক এসএম মাহমুদ হাসান বিপু।

তথ্যসূত্রঃ Daily gramerkagoj