আপডেট: এপ্রিল ৭, ২০১৪   ||   ||   মোট পঠিত ৫৩৩ বার

নজরুলের গান কবিতায় অগ্নিবীণার বর্ষবরণ, স্পন্দন নিমন্ত্রণপত্র পা াচ্ছে ঘোড়ার পি ে

স্বপ্না দেবনাথ : ব্যতিক্রমী ঢঙে এবার নববর্ষ বরণ করবে নজরুল চেতনার সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ ান অগ্নিবীণা কেন্দ্রীয় সংসদ ও স্পন্দন সাংস্কৃতিক সংগ ন যশোর। এলক্ষ্যে সপ্তাহের প্রতি শনি ও মঙ্গলবার বেজপাড়ার একাডেমি কার্যালয়ে চলছে কাজী নজরুল ইসলামের গ্রীষ্ম ঋতু ভিত্তিক গান, কবিতা আর নজরুলের গানের সাথে নৃত্যের মহড়া। অগ্নিবীণা নড়াইল ও সাতক্ষীরা শাখাতেও একইভাবে এ আয়োজন হাতে নেয়া হয়েছে। ২ বৈশাখ যশোর এক নাম্বার আইনজীবী ভবন মোড়ে এ অনুষ্ ানে মাতবে অগ্নিবীণা, মাতাবে সবাইকে।

পুরনো বছরের নানা সাফল্য-ব্যর্থতা আর পাওয়া না পাওয়ার দিনগুলো বিদায়ের সাথে সাথে নতুন দিনের নববারতা নিয়ে আসছে বঙ্গাব্দ ১৪২১। আর এ নববর্ষকে স্বাগত জানাতে নান্দনিক প্রস্তুতি চলছে অগ্নিবীণা কেন্দ্রীয় সংসদের। আমাদের জাতীয় কবি, বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের অসাম্প্রদায়িক চেতনাকে প্রসারিত করার লক্ষে ২০১০ সালে আত্মপ্রকাশ করে অগ্নিবীণা। প্রতিষ্ াকাল তিন বছর হলেও এ অল্প সময়ে তিন দফায় নজরুল উৎসব উদযাপন করাসহ অনেকগুলো নান্দনিক অনুষ্ ান হাতে নিয়ে আলোচনায় উ ে এসেছে। নজরুল গান, কবিতা প্রলয় উল্লাস ও তার অন্যান্য রচনাবলি চর্চাকে প্রধান্য দিয়ে আসা এ সংগ নটি এবারে নববর্ষে রাখতে যাচেছ ব্যতিক্রমী ছোঁয়া। গতানুগতিক গান গুলো দিয়ে বর্ষবরণের পরিবর্তে তারা বাঙালী ঐতিহ্যের ও ধারাবাহিকতার সাথে তাল রেখে নজরুলের গ্রীষ্ম ঋতু ভিত্তিক গান দিয়ে সাজাবে নববর্ষের অনুষ্ ান। নজরুলের যেসব গান ও কবিতায় বৈশাখ তথা গ্রীষ্মের প্রভাব রয়েছে সেসব গানের নান্দনিক উপস্থাপন থাকবে। “ওই নতুনের কেতন ওড়ে কাল বোশেখী ঝড়, তোরা সব জয়ধ্বনি কর” অথবা “শুকনো পাতার নুপূর পায়ে নাচিছে ঘূর্ণী বায়, জল তরঙ্গে ঝিলমিল ঝিলমিল ঢেউ তুলে সে যায়” এধরনের গান গুলোকে বাছাই করা হয়েছে। এতে একই দিকে নববর্ষকে স্বাগত জানানোই হবে, আবার নজরুল রচনাকেও প্রাধান্য দেয়া হবে। এছাড়া নজরুল গান দিয়ে অনুষ্ ান সাজালে ব্যতিক্রমী নান্দনিক হবে বলে আশা ব্যক্ত করেন আয়োজকরা।

অগ্নিবীনার আয়োজনের মধ্যে থাকছে ১ বৈশাখ সন্ধ্যায় সংগ নের বেজপাড়ার কার্যালয়ে আডডা খাওয়া দাওয়া, আর ২ বৈশাখ বিকেল থেকে এক নাম্বার আইনজীবী ভবন মোড়ে নজরুলের কবিতা আবৃত্তি, নজরুলের ঋতুভিত্তিক গান নিয়ে বিশেষ সাংস্কৃতিক অনুষ্ ান। এছাড়া শেষ পর্বে থাকবে বাউল গান আর বাংলার ঐতিহ্যময় বাদ্যযন্ত্র একতারা, দোতারা বাজিয়ে গান।

অনুষ্ ান উদযাপন পরিষদের আহবায়ক অগ্নিবীণার সহসভাপতি নাঈম নাজমুল ও সদস্য সচিব নির্বাহী সদস্য নজরুল ইসলাম বুলবুল জানান সাংস্কৃতিক অনুষ্ ানের পাশাপাশি ওই দিন থাকবে মাংস খিচুড়ি দিয়ে অতিথি আপ্যায়নের পর্ব।

অগ্নিবীণার সংগীত শিক্ষক মনিকা গাঙ্গুলি ও পংকজ কান্তি বিশ্বাস জানান, শিল্পী কলাকুশলীসহ অতিথি শিল্পীরা নৃত্য, সংগীত আর আবৃত্তি পরিবেশন করবেন। অগ্নিবীণা কেন্দ্রীয় সংসদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জাহিদ আহমেদ লিটন ও সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান মোর্শেদ আলম জানান, দেশে বিদেশে বিদ্রোহী কবি আমাদের সত্তার কবি কাজী নজরুলকে আড়াল করতে সুক্ষ ষড়যন্ত্র চলছে। সেই সময়ে অগ্নিবীণার আত্মপ্রকাশ। তাই অগ্নিবীণা যে অনুষ্ ান মালা হাতে নেবে তাতে নজরুলকে অগ্রাধিকার দেয়া হবে। তাই এবারের বর্ষবরণ গতানুগতিক না করে নজরুলের ঋতু ভিত্তিক গান নিয়ে অনুষ্ ান সাজানো হচ্ছে।

এদিকে, মাটির সুর বাউল সংগীত আর লোকগানকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে নিজস্ব ঐতিহ্যের সাথে দুই যুগের বেশি সময় ধরে যশোরের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে অবদান রাখছে স্পন্দন সাংস্কৃতিক সংগ ন। বিভিন্ন রঙে ঢঙে প্রতিষ্ া লগ্ন থেকে নববর্ষ উদযাপন করে আসছে তারা। সংগ নের ব্যানারে এবার ২৭ বারের মত নববর্ষ উদযাপন করবে স্পন্দন। সব আয়োজন সফল করতে একাডেমি চত্ত্বরে বিকেল থেকে চোখে পড়ছে বিশেষ ব্যস্ততা। অনুষ্ ান মহড়ার পাশাপাশি আকর্ষণীয় আমন্ত্রন পত্র তৈরিতে ব্যস্ত অনেকে। ১৪২১কে স্বাগত জানাতে স্পন্দন এবার বিশেষ প্রস্তুতি নিয়েছে। দুটি অধিবেশনে বিভক্ত করে এবার তারা দিন ব্যাপী অনুষ্ ান করবে পহেলা বৈশাখে। ইতিমধ্যে ঘোড়ার পি ে তারা নিমন্ত্রণ পত্র পা াতে শুরু করেছে শুভাকাঙ্খীদের দ্বারে। বিশেষ আদলে তৈরি কৃত্রিম এ ঘোড়ার পি ে তারা রাজা বাদশাদের অনুকরণে পা াচ্ছে আমন্ত্রণ। চারখাম্বা মোড়ে আয়োজিত অনুষ্ ানের প্রথম অধিবেশন শুরু হবে সকাল ৭টায়। অনুষ্ ান শেষে শোভা যাত্রা এবং সকাল ১০টায় বসবে মিষ্টি মুখের আসর।

এরপর বিকেল ৫টায় দ্বিতীয় অধিবেশনে আবৃত্তি, নাচ ও গানের সাথে থাকছে মজার নাটক। যে আয়োজন উপস্থাপন করতে খয়েরি পাঞ্জাবী আর পেস্ট রঙের শাড়ীতে নিজেদের সাজাবে স্পন্দনের বন্ধুরা। ক্ষুদে শিল্পীসহ ১শ’ ১৩ জনের সমন্বয়ে পরিবেশিত হবে এবারকার বর্ষবরণ অনুষ্ ান।

সার্বিক আয়োজন সম্পর্কে সংগ ন সম্পাদক শরীফুল ইসলাম শরীফ বলেন,“আমরা সর্বদা নিজস্ব সংস্কৃতির ধারায় চলি। সে ধারাবাহিকতা এবারের আয়োজনে সুস্পস্ট হবে। বিশেষ আয়োজন হিসেবে এবার আমাদের আয়োজনে আসবে বাউল গানের দল। সব আয়োজন আশাকরি যশোরবাসীর মনে স্থান পাবে।

তথ্যসূত্রঃ Gramerkagoj