আপডেট: জুন ২২, ২০১৬   ||   ||   মোট পঠিত ১৭৪ বার

পঞ্চম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষা বাতিল

প্রাথমিক শিক্ষা অষ্টম শ্রেণিতে উন্নীত হওয়ায় চলতি বছর থেকেই পঞ্চম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষা বাতিল হয়ে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার। সচিবালয়ে নিজ দফতরে মঙ্গলবার সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে মন্ত্রী এ তথ্য জানান। পঞ্চম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষা শিশুদের বাড়তি চাপে ফেলছে বলে শিক্ষাবিদ, অভিভাবকসহ বিভিন্ন মহল থেকে এ পরীক্ষা বাতিলের দাবি উঠেছে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘এ বছর থেকেই আমরা একটা পরীক্ষায় চলে যাব। দুটো পরীক্ষা আর থাকবে না, এ বছর সামনে নভেম্বরে একটা পরীক্ষা হবে।’ তিনি বলেন, ‘আগে প্রাথমিক সমাপনীর পরীক্ষা হত পঞ্চম শ্রেণিতে, তখন প্রাথমিকের শিক্ষাকাল ছিল প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণি। এখন আমাদের এ শিক্ষাকাল প্রথম থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত। আগে অষ্টম শ্রেণিতে জেএসসি (জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট) হিসেবে পরীক্ষা হতো। এখন একই প্রাইমারি শিক্ষার অধীনে কয়টি পরীক্ষা হবে?’

‘সর্বশেষ সিদ্ধান্ত হল, প্রাথমিকে (প্রথম থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত) একটা পরীক্ষা আমরা এ বছর থেকেই বাস্তবায়ন করব। এটা আমি নিশ্চিত হয়েই বলছি। পদ্ধতিগত আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করতে বাকি। পঞ্চমে আর সমাপনী পরীক্ষা হবে না, অষ্টমে গিয়েই সমাপনী পরীক্ষা হবে’ বলেন মোস্তাফিজুর রহমান। অষ্টম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষার নাম ও অন্যান্য বিষয়গুলোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে মন্ত্রিসভায় একটি প্রস্তাব যাবে জানিয়ে মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘আগামী সপ্তাহে বা ১৫ দিনের মধ্যেই প্রস্তাব মন্ত্রিসভায় পাঠানো হবে।’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে কথা বলে মন্ত্রী এ সিদ্ধান্তের কথা জানাচ্ছেন কীনা- একজন সাংবাদিকের এমন প্রশ্নের জবাবে গণশিক্ষা মন্ত্রী বলেন, ‘এটা কি আমার বলার দরকার আছে। আমরা যা বলি বা যেটা করি বিশেষ করে সরকারের কোন কর্তব্যকর্ম সম্পর্কে, যথাযথ কর্তৃপরে অনুমোদন ছাড়া ব্যক্তিগত পর্যায়ে কি কোন কিছু বলা কতটুকু সম্ভব।’

গত ১৮ মে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রাথমিক ও গণশিা মন্ত্রণালয়ের অধীনে দেওয়ার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হলেও এ বিষয়ে এখনও মন্ত্রিসভার অনুমোদন পাওয়া যায়নি। পঞ্চম শ্রেণির বৃত্তির বিষয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের যদি বৃত্তি রাখতে হয় তবে বৃত্তি বাছাই পর্ব একটা থাকবে। আমার যে ৮২ হাজার বৃত্তি দিচ্ছি সে প্রশ্নও তো আবার আছে। নিয়ম অনুযায়ী এ পরীক্ষা (পঞ্চম শ্রেণির সমাপনী) না থাকলে বৃত্তিও থাকার কথা নয়। যদি বৃত্তি রাখতে হয় তাহলে মেধা যাচাইয়ের অন্য কোন একটা ব্যবস্থা রাখতে হবে। থানাভিত্তিক বা এ রকম একটা কিছু।’ পঞ্চম শ্রেণির বৃত্তির বিষয়ে মোস্তাফিজুর রহমান আরো বলেন, ‘যারা সুপারিশ করেছিল এটা (পঞ্চমের সমাপনী পরীক্ষা) থাকলে (শিশুদের) বোঝা হবে, তারা (বৃত্তির বিষয়ে) কি সুপারিশ করে সেটা একটু শুনি।’

ইতোমধ্যে পঞ্চম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষার প্রস্তুতি অনেক দূর এগিয়ে গেছে- এ বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘এখন থেকে তারা (সংশ্লিষ্টরা) কাজ পুরোপুরি বন্ধ করে দেবে। অষ্টম শ্রেণিতে যে পরীক্ষা হবে সেটার প্রস্তুতি চলবে এখন।’ প্যানেলভুক্তরা সবাই পর্যায়ক্রমে নিয়োগ পাবেন প্যানেভুক্ত প্রার্থীদের সবাই শিক্ষক নিয়োগ পাচ্ছেন না বলা হচ্ছে- এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী বলেন, আদালত মেধাতালিকা ধরে নিয়োগের কথা বলা হয়েছে। কিন্তু আদালতের রায়ে পরোক্ষভাবে সবাইকেই নিয়োগ দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। মেরিট লিস্টে নিতে গেলে দেখা যায় কেউ রিট করে পিছনে আছে, কেউ মামলা না করেও সামনে রয়েছে। আমরা মনে করি ধীরে ধীরে সবাই নিয়োগ পেয়ে যাবে। এটা চলতে থাকবে। আমার এভাবে শেষ করে দেব।’

তথ্যসূত্রঃ Daily Loksomaj