আপডেট: জুন ২৩, ২০১৬   ||   ||   মোট পঠিত ৬৯৯৩ বার

 যশোরে মোটরসাইকেলের কাগজপত্র পরীক্ষার নামে পুলিশের অর্থবাণিজ্য

যশোরে মোটরসাইকেল মালিকরা পুলিশের তল্লাশির নামে নাজেহালের শিকার হচ্ছেন। আর মোটরসাইকেলের কাগজপত্র পরীক্ষার নামে পুলিশ ঈদকে সামনে রেখে অবৈধ অর্থ উপার্জনে মেতে উঠেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এদিকে অবৈধ নসিমন-করিমন, ব্যাটারিচালিত (অটো) রিকসা-ভ্যানসহ ফিটনেসবিহীন বাস-ট্রাক পুলিশের নাকের ডগা দিয়ে চলাচল করলেও এসবের বিরুদ্ধে কোন পদক্ষেপ না নেয়ায় নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে সচেতন মহলে। অভিযোগ রয়েছে, এসব যানবাহন থেকে অনৈতিক সুবিধা পাওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেয়া হয়না।

গত কয়েকদিন হলো যশোরের বিভিন্ন সড়কে এবং শহরের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোতে পুলিশ মোটরসাইকেল মালিকদের দাঁড় করিয়ে কাগজপত্র পরীক্ষা করছে। পাশাপাশি মোটরসাইকেল আরোহীদের শরীরে তল্লাশি চালানো হচ্ছে। কাগজপত্র যাচাইকালে ত্রুটি পেলে কোন সুযোগ না দিয়ে পুলিশ মামলা ঠুকে দিচ্ছে। আবার কেউ কেউ গোপনে হাতে টাকা গুজে দিলে কাগজপত্র না থাকলেও তার মোটরসাইকেল ছেড়ে দিচ্ছে পুলিশ। মোটরসাইকেল পরীক্ষার দায়িত্বে থাকা কয়েকজন পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। তাছাড়া পুলিশ কাগজপত্র পরীক্ষার নামে মোটরসাইকেল মালিকদের অহেতুক হয়রানি ও নাজেহাল করছে। এ ধরনের অভিযোগ করেছেন বেশ কয়েকজন মোটরসাইকেল মালিক। তারা বলছেন, ঈদ এলেই পুলিশের এ ধরণের অভিযান বেড়ে যায়। তবে অবৈধ আয়ের জন্য যে এ অভিযান চালনো হয় তা এখন কারো অজানা নয়। তারা এ ব্যাপারে প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন। এদিকে মোটরসাইকেলের কাগজপত্র পরীক্ষার দায়িত্বে থাকা পুলিশের সামনে দিয়ে অবৈধ নসিমন-করিমন, ব্যাটারি চালিত রিকশা-ভান এবং ফিটনেসবিহীন বাস-ট্রাক চলাচল করলেও এসব যানবাহনের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছেনা। ফলে পুলিশের অভিযান নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠেছে। অভিযোগ রয়েছে, পুলিশ ওইসব যানবাহন থেকে অনৈতিক সুবিধা পেয়ে থাকেন। যে কারণে তাদের নাকের ডগা দিয়ে অবৈধ এসব যানবাহন চলাচল করলেও কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়না।

তথ্যসূত্রঃ Daily Loksomaj