কেশবপুরে এক বোটায় ৪৪ লাউ
এক বোটায় ৪৪ লাউ

যশোর: এক বোটায় ৪৪টি লাউ- বিষয়টি ভাবতেও অবাক লাগে। বোটাপ্রতি একটি লাউ দেখতে আমরা অভ্যস্ত। কিন্তু এ অস্বাভাবিক ও বিস্ময়কর ঘটনাটি যশোরের কেশবপুরের। স্থানীয় কড়িয়াখালীর এক কৃষকের খেতে এ অভাবনীয় দৃশ্যটি হৈচৈ ফেলে দিয়েছে গোটা এলাকায়।

লাউগুলো এখন যশোরের কেশবপুর উপজেলার কড়িয়াখালী গ্রামের বাওড় মশনিয়ার পাড়ে গড়ে ওঠা ‘প্রতিবন্ধী সেবা কেন্দ্র’ নামে একটি পার্কে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। উৎসুক মানুষ লাউ দেখতে ভিড় জমাচ্ছেন পার্কটিতে।

সরেজমিনে দেখা যায়, ৪৪টি লাউয়ের মধ্যে ৭টি লাউ বোটা ছিঁড়ে পড়ে গেছে। এখন দেখা মিলছে ৩৭টির। পার্ক কর্তৃপক্ষ মাইকে প্রচার করছে লাউগুলো দেখার জন্য।

পার্কটির সভাপতি রেজাউল হক বাংলানিউজকে জানান, স্থানীয় কড়িয়াখালী গ্রামের মৃত তমেজ উদ্দিনের ছেলে আতাউর রহমানের বাড়ির খেতে লাউ গাছের একটি বোটায় ছোট-বড় মিলিয়ে ৪৪টি লাউ জন্মে। এ খবর জানতে পেরে সম্প্রতি তারা লাউ মালিকের সঙ্গে কথা বলে ২শ’ টাকার বিনিময়ে বোটাসহ লাউগুলো পার্কে নিয়ে আসেন।

এ বিষয়ে চাষি আতাউর রহমান বাংলানিউজকে জানান, তিনি বাড়ির আঙিনায় লাউ চাষ করছেন। মাসখানেক আগে দেখা যায় একটি বোটায় ছোট-বড় মিলিয়ে ৪৪টি লাউ ধরেছে। আস্তে আস্তে লাউগুলো বড়ও হতে শুরু করে। এরমধ্যে কয়েকটি লাউ বড় হলেও বাকিগুলো খুব বেশি বড় হয়নি। তবে ওই গাছের অন্য প্রতিটি বোটায় একটার বেশি লাউ হয়নি।

প্রতিবন্ধী সেবা কেন্দ্রের পরিচালক মতিয়ার রহমান খান বাংলানিউজকে বলেন, গত ৮-১০দিনে ওই লাউ দেখতে কয়েকশো মানুষ ভিড় জমিয়েছে।

কেশবপুর উপজেলা কৃষি অফিসার সঞ্জয় কুমার দাস বাংলানিউজকে বলেন, ন্যাচারাল মিউটিশনের মাধ্যমে জিনগত কারণে এটা সম্ভব হতে পারে। তবে এটা কোনো সাধারণ ফিগার না।